default-image

ফুলপুরের ইউএনও শীতেষ চন্দ্র সরকার তাঁর সরকারি ফেসবুক পেজে মেয়েটির নাম এবং ঘটনার বর্ণনা লিখে মোবাইল নম্বর উল্লেখ করে একটি পোস্ট করেন। তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলেন। পাশাপাশি পুলিশ ও জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে হারানো শিশুটির স্বজনের খোঁজ করতে থাকেন তিনি। পরে শিশুটিকে নতুন জামা ও শীতবস্ত্র উপহার দিয়ে ফুলপুর থানায় হস্তান্তর করেন ইউএনও। এর কয়েক ঘণ্টা পর ফুলপুর থানায় যান রিয়ার নানা রমজান আলী ও নানি রহিমা খাতুন। রিয়া তাঁদের চিনতে পারে। জড়িয়ে ধরে কাঁদতে থাকে।

ফুলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমারত হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর আনুষ্ঠানিকতা শেষে শিশু রিয়া মণিকে গতকাল রাতেই তার নানা-নানির কাছে দেওয়া হয়।

ফুলপুরের ইউএনও শীতেষ চন্দ্র সরকার বলেন, বর্তমানে শিশুটি তার নানা-নানির সঙ্গে আছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন