default-image

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড ও তাঁর পরিবার নিয়ে কটূক্তি এবং সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষমূলক বিভিন্ন প্রচারণা চালানোর অভিযোগে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ (শোকজ) দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এতে তাঁর বিরুদ্ধে কেন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না, সে বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে জবাব দিতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া বিষয়টি তদন্ত করার জন্য তিন সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটিও করা হয়েছে। আজ সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর সুব্রত কুমার দাশ প্রথম আলোকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

ওই শিক্ষার্থীর নাম মো. খালিদ হাসান। তিনি লোকপ্রশাসন বিভাগের সম্মান শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী এবং সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শাখার কর্মী বলে জানা গেছে।

তদন্ত করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলমকে প্রধান করে তিন সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক মো. মনজুর আহমেদ ও আইন বিভাগের শিক্ষক সুপ্রভাত হালদার।

প্রক্টর জানান, অভিযুক্ত শিক্ষার্থীকে আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডির কাছে নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে। অন্যদিকে বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলমকে প্রধান করে তিন সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক মো. মনজুর আহমেদ ও আইন বিভাগের শিক্ষক সুপ্রভাত হালদার। কমিটির সদস্যরা পরবর্তী সাত কার্যদিবসের মধ্যে অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত প্রতিবেদন তৈরি করবেন।

বিজ্ঞাপন

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সূত্র জানায়, ফেসবুকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকাণ্ড এবং তাঁর পরিবার ও প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে নানা কটূক্তি, সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষমূলক নানা মতামত প্রচার চালানোর অভিযোগে গত বৃহস্পতিবার খালিদের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করেন কয়েকজন শিক্ষার্থী। খালিদ হাসান তাঁর ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডি থেকে এসব প্রচার করছেন বলে ওই শিক্ষার্থীদের অভিযোগ।

আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে, তা সম্পূর্ণ অসত্য। অভিযোগ করার আগে তাঁরা আমার সঙ্গে কথা বলে আমার বক্তব্য নিতে পারতেন। আমি বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে কোনো কটূক্তিমূলক স্ট্যাটাস দিইনি।
খালিদ হাসান, অভিযুক্ত শিক্ষার্থী

এদিকে অভিযোগ প্রসঙ্গে খালিদ হাসান প্রথম আলোকে আজ সন্ধ্যায় বলেন, ‘আমি এ-সংক্রান্ত একটি নোটিশ আজ পেয়েছি। যথাযথ সময়ে এর জবাব দেব। তবে আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে, তা সম্পূর্ণ অসত্য। ফেসবুকে আমার স্ট্যাটাসে যা লিখেছি, তার ভিত্তিতে কিছু শিক্ষার্থী এমন অভিযোগ এনেছেন। অভিযোগ করার আগে তাঁরা আমার সঙ্গে কথা বলে আমার বক্তব্য নিতে পারতেন। আমি বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে কোনো কটূক্তিমূলক স্ট্যাটাস দিইনি।’

মন্তব্য পড়ুন 0