default-image

লক্ষ্মীপুরে ফেসবুক লাইভে এসে নিজেকে নির্দোষ দাবির পর আদালত ভবনের ছাদ থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন এক যুবক। আজ বুধবার বেলা ১টার দিকে লক্ষ্মীপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালত ভবনের পাঁচতলার ছাদ থেকে লাফিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি। এ সময় আদালত প্রাঙ্গণে বিপুলসংখ্যক মানুষের ভিড় ছিল।

আত্মহত্যাকারী ওই যুবকের নাম রাকিব হোসেন (২৭)। তিনি লক্ষ্মীপুর পৌরসভার ১০ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তর মজুপুর এলাকার নুরুল ইসলামের ছেলে। পৌরসভার মোটকা মসজিদ এলাকায় বড় ভাই সোহেল হোসেনের সঙ্গে তিনি ভাঙারির ব্যবসা করতেন।

আত্মহত্যার আধা ঘণ্টা আগে রাকিব হোসেন রোমান নামের এক ফেসবুক আইডি থেকে লাইভে আসেন তিনি। ১ মিনিট ৪৬ সেকেন্ডের ফেসবুক লাইভে রাকিব হোসেন বলেন, ‘মা আঁই সজ্ঞানে মইরতে যাইতাছি। আঁই তামা (তার) চুরি করি ন মা। জীবনে অনেক ভুল কইরছি মা। আঁর মৃত্যুর লাই কেউ দায়ী নাই। আঁই নিজের ইচ্ছায় যাইতাছি মা। অনেক ভুল কইরছি মা। একটা মাইয়ার জীবনও নষ্ট কইরছি। আঁই বিয়া কইরছি। বিয়া করি সুখী হইতে পাইরতাছি না। আঁর কইলজা হাডি যাই। আঁর অ্যাকাউন্টে ৭৫ হাজার টিঁয়া(টাকা) আছে মা। বাড়ির ড্রয়ারের মধ্যে আঁর এটিএম কার্ড আছে।’

লক্ষ্মীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত (ওসি) মো. জসীম উদ্দিন বলেন, আদালতে যে যাঁর মতো কাজ নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। হঠাৎ একটি শব্দ শুনতে পান আশপাশের লোকজন। তাৎক্ষণিকভাবে দেখা যায়, জেলা ও দায়রা জজ আদালত ভবনের সামনেই রাকিব পড়ে আছেন। পরে রাকিবকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন