বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

লাশ ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে। আজ মঙ্গলবার দুপুরে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের শনাক্ত ও গ্রেপ্তারের জন্য অভিযান চলছে।

আজিজুর টাকাপয়সা দিতে রাজি না হলে ছিনতাইকারীদের সঙ্গে ধস্তাধস্তি শুরু হয়। একপর্যায়ে ছিনতাইকারীরা তাঁর বুকে ছাড়াও শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছুরিকাঘাত করে সর্বস্ব কেড়ে নিয়ে পালিয়ে যায়।

পুলিশ ও স্বজন সূত্রে জানা গেছে, বগুড়া পৌরসভার বনানী এলাকার সুলতানগঞ্জ হাটে সবজি বিক্রি করে ব্যাটারিচালিত ভ্যানে বাড়ি ফিরছিলেন আজিজুর। পথে হেলেঞ্চাপাড়া এলাকায় অস্ত্রের মুখে ভ্যানের গতি রোধ করে একটি মোটরসাইকেলে আসা তিন ছিনতাইকারী। অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে প্রথমে ভ্যানচালক আবদুর রহমানের কাছ থেকে তারা সর্বস্ব কেড়ে নেয়। এ সময় ছিনতাইকারীরা ভ্যানের আরোহী আজিজুরের কাছে যা আছে, তা দিতে বলে। আজিজুর টাকাপয়সা দিতে রাজি না হলে ছিনতাইকারীদের সঙ্গে ধস্তাধস্তি শুরু হয়। একপর্যায়ে ছিনতাইকারীরা তাঁর বুকে ছাড়াও শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছুরিকাঘাত করে সর্বস্ব কেড়ে নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন আজিজুরকে উদ্ধার করে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেন। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

শাজাহানপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল্লাহ আল মামুন প্রথম আলোকে বলেন, ছিনতাইকারীদের ভয়ে ভ্যানচালক আবদুর রহমান সঙ্গে যে টাকাপয়সা ছিল, তা দিয়ে দেন। তিনি অক্ষত রয়েছেন। কিন্তু হাটে হাটে সবজি বিক্রি করে সংসার চলত আজিজুর রহমানের। এ কারণে তাঁর কাছে থাকা সবজি বিক্রির তিন হাজার টাকা তিনি দিতে রাজি হননি। এ সময় ছিনতাইকারীদের সঙ্গে ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে ছিনতাইকারীরা তাঁকে ছুরিকাঘাত করে। হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন