বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পিপি আরও বলেন, আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন।

দারিদ্র্যের সুযোগ নিয়ে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে ওই আওয়ামী লীগ নেতা ২০২০ সাল থেকে ইচ্ছার বিরুদ্ধে ওই গৃহপরিচারিকাকে একাধিকবার ধর্ষণ করেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ওই নারী চেয়ারম্যান প্রার্থীর বাড়িতে গৃহপরিচারিকা হিসেবে কাজ করতেন। পরবর্তী সময়ে দারিদ্র্যের সুযোগ নিয়ে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে তিনি ২০২০ সাল থেকে ইচ্ছার বিরুদ্ধে তাঁকে একাধিকবার ধর্ষণ করেন। একপর্যায়ে বিয়ের জন্য চাপ দিলে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানান।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী এনামুল হক বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে মামলার বিষয়ে আমি কিছু জানি না। আর আমার বাড়িতে ওই নামে কোনো গৃহকর্মী ছিলেন না। নির্বাচনের আগে এসব ষড়যন্ত্র।’

তৃতীয় ধাপে ২৮ নভেম্বর শাখারিয়া ইউপির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন