দরজায় কড়া নাড়ছে পবিত্র ঈদুল আজহা। আর ঈদ ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে সালাদ তৈরির অন্যতম অনুষঙ্গ শসা, কাঁচা মরিচের দাম বেড়েছে। শতক পার করেছে টমেটো ও গাজরের দামও। আজ শুক্রবার বগুড়া শহরের ফতেহ আলী ও বকশীবাজার ঘুরে ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে। শসা, কাঁচা মরিচের দাম বেড়েছে সবজির পাইকারি মোকাম মহাস্থানেও।

বাজার ঘুরে জানা যায়, এক দিন আগেও খুচরা পর্যায়ে ভালো মানের এক কেজি শসার দাম ছিল গড়ে ৫০ টাকা। ঈদে চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় খুচরা পর্যায়ে দেশি শসা ১৪০ এবং হাইব্রিড জাতের শসা প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ১২০ টাকায়।

বকশীবাজারের সবজি বিক্রেতা আবদুস সালাম বলেন, ‘এক দিন আগেও কাঁচা মরিচ ১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেছি। আজ বিক্রি করছি ১৬০ টাকা দরে। শসার কেজি এক দিন আগে ছিল ৫০। আজ একলাফে ১২০। এ ছাড়া টমেটো ও গাজর ১২০ টাকা দরে বিক্রি করছি।’

বকশীবাজারে শসা কিনতে আসা জোবায়ের হাসান দাম শুনে কিছুটা খ্যাপেই গেলেন। বললেন, ‘কোরবানির ঈদের সঙ্গে শসার সম্পর্ক কী? মানুষ কী শসা দিয়ে মাংস রান্না করবে!’

শুক্রবার সকালে মহাস্থান হাট সবজির আড়তে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, চাহিদার সুযোগে এখানেও হঠাৎ বেড়েছে শসা, কাঁচা মরিচসহ বেশ কিছু সবজির দাম। পাইকারি পর্যায়ে শুক্রবার মহাস্থান বাজারে প্রতি কেজি শসা ৬০, কাঁচা মরিচ ১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার পাইকারি পর্যায়ে শসা ৪০ এবং কাঁচা মরিচ গড়ে ৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে।

মহাস্থান হাট কাঁচা ও পাকা মাল আড়তদার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম বলেন, ঈদে মানুষের পাতে কোরবানির মাংসের সঙ্গে থাকে সালাদ। সালাদ তৈরির অনুষঙ্গ শসার চাহিদার সঙ্গে দাম দ্বিগুণ বেড়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন