default-image

বগুড়ায় কোভিড-১৯ (করোনাভাইরাস) পজিটিভ শনাক্ত একজন প্রসাধন ব্যবসায়ীর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া কোভিডের উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালের করোনা ইউনিটে মারা গেছেন দুজন।

বগুড়ার কোভিড রোগীদের জন্য নির্ধারিত মোহাম্মদ আলী হাসপাতাল ও শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গতকাল সোমবার রাত আটটা থেকে আজ মঙ্গলবার সকাল নয়টা পর্যন্ত ওই তিন রোগী মারা যান।

মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের আইসোলেশনে আজ সকাল নয়টায় মারা গেছেন কোভিড শনাক্ত প্রসাধন ব্যবসায়ী। তাঁর নাম নিজাম উদ্দিন (২৯)। তিনি বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার মোকামতলা এলাকার বাসিন্দা।

মোহাম্মদ আলী হাসপাতাল প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, কোভিডের উপসর্গ নিয়ে নিজাম উদ্দিন বেসরকারি টিএমএসএস মেডিকেল কলেজে নমুনা দেন। গত শনিবার টিএমএসএস মেডিকেল কলেজের আরটি-পিসিআর ল্যাবরেটরিতে নমুনা পরীক্ষায় তিনি কোভিড পজিটিভ শনাক্ত হন। আজ সকালে মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে ভর্তির পর সকাল নয়টার দিকে তাঁর মৃত্যু হয়।

কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের স্বেচ্ছাসেবীদের সহযোগিতায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে তাঁর লাশ মোকামতলায় নিজ গ্রামে দাফন করা হয়েছে।

অন্যদিকে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে আজ ভোর পাঁচটার দিকে উপসর্গে মারা গেছেন এক বৃদ্ধ (৬৬) । তাঁর বাড়ি গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায়। তিনি পেশায় ইটভাটার মালিক। গতকাল সোমবার কোভিডের উপসর্গ নিয়ে তিনি শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন। নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের আরটি-পিসিআর ল্যাবরেটরিতে পাঠানো হলেও প্রতিবেদন আসার আগেই তিনি মারা যান।

এ ছাড়া হাসপাতালের করোনা ইউনিটে গতকাল সন্ধ্যায় মারা গেছেন এক নারী (৫২)। তিনি শাজাহানপুর উপজেলার বাসিন্দা। কোভিডের উপসর্গ নিয়ে গতকাল বেলা দেড়টার দিকে তিনি হাসপাতালে ভর্তি হন। তাঁর নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের ল্যাবরেটরিতে পাঠানো হয়।

বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মুখপাত্র ও ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম ইউনিটের কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম এসব তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন