বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ভাসানচরে কোস্টগার্ডের জ্যেষ্ঠ ওয়ারেন্ট অফিসার আবদুল মমিন বিষয়টি নিশ্চিত করে প্রথম আলোকে বলেন, লাইটার জাহাজডুবির ঘটনাটি সকাল সাড়ে নয়টার দিকে জানতে পারেন তাঁরা। জাহাজটিতে ১১ জন নাবিক ছিলেন এবং কয়লা বোঝাই করা ছিল।

কোস্টগার্ড কর্মকর্তা আবদুল মমিন আরও বলেন, খবর পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে কোস্টগার্ডের একটি দল ভাসানচর থেকে ঘটনাস্থলে রওনা হয়েছে। দলটি এরই মধ্যে সেখানে পৌঁছেছে। এ ছাড়া নৌবাহিনীর আরেকটি জাহাজও সেখানে গেছে।

কোস্টগার্ডের এই কর্মকর্তা বলেন, সাগর উত্তাল থাকায় ডুবে যাওয়া জাহাজ ও নিখোঁজ নাবিকদের কাউকে এখন পর্যন্ত উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। জাহাজডুবির কারণ সম্পর্কেও এখন পর্যন্ত নিশ্চিত হতে পারেননি তাঁরা।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন