default-image

বরিশালে একটি যাত্রীবাহী বাস ও অপর একটি পিকআপে অভিযান চালিয়ে ৩০৪ মণ জাটকা জব্দ করা হয়েছে। এসব জাটকা পাচারের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে চারজনকে আটক করা হয়েছে। গতকাল শনিবার দিবাগত গভীর রাতে বরিশাল নগরের আবদুর রব সেরনিয়াবাত সেতুর টোল প্লাজা এলাকায় এই অভিযান চালায় নৌ পুলিশ ও মৎস্য বিভাগ।

পরে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মারুফ দস্তগীর পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালতে তাঁদের ১২ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেওয়া হয়। আর উদ্ধার করা জাটকা বিভিন্ন মাদ্রাসা ও গরিবদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে।

বরিশাল নৌ পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সোলায়মান মিয়া বলেন, ভোলার লাহারহাট থেকে পিকআপ ভ্যানে এবং কুয়াকাটা থেকে যাত্রীবাহী বাসে করে রাজধানীতে জাটকা পাচারের খবরে ঘটনাস্থলে অবস্থান নেয় নৌ পুলিশ। এ সময় বরিশাল থেকে ঢাকাগামী বিভিন্ন যানবাহনে অভিযান চালানো হয়। রাত সাড়ে ৩টা পর্যন্ত চলা এ অভিযানের সময় মৎস্য অধিদপ্তর ও জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। একপর্যায়ে একটি পিকআপ ভ্যান ও একটি যাত্রীবাহী বাস থেকে ৩০৪ মণ জাটকা উদ্ধার এবং তা পাচারের অভিযোগে চারজনকে আটক করা হয়।

মৎস্য বিভাগ জানায়, ইলিশ সম্পদ রক্ষায় দেশের ইলিশের ছয় অভয়াশ্রমের মধ্যে পাঁচটিতে সব ধরনের মাছ ধরার ওপর দুই মাসের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে সরকার। ১ মার্চ থেকে এই নিষেধাজ্ঞা শুরু হয়েছে। আগামী ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা চলবে। এর বাইরে দেশে ইলিশের উৎপাদন বাড়াতে প্রতিবছর ১ নভেম্বর থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত আট মাস জাটকা (১০ ইঞ্চির চেয়ে ছোট ইলিশ) ধরা, পরিবহন ও বিক্রি নিষিদ্ধ থাকে। বর্তমানে এই নিষেধাজ্ঞা বলবৎ আছে। তা থাকবে ৩০ জুন পর্যন্ত। এই নিষেধাজ্ঞার মধ্যেই পাঁচ অভয়াশ্রমে নতুন করে সব ধরনের ইলিশসহ মাছ আহরণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান বলেন, নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করতে মৎস্য বিভাগ জেলা, উপজেলা প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগিতায় সার্বক্ষণিক নজরদারি অব্যাহত রেখেছে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন