বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আদালত সূত্র জানায়, আজ দুপুরে ওই দুই আওয়ামী লীগ নেতার পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন আইনজীবী ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তালুকদার মো. ইউনুস। শুনানির পর বিচারক ১০ হাজার টাকা মুচলেকায় দুজনের জামিন মঞ্জুর করেন। পুলিশের তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়া পর্যন্ত এ জামিন মঞ্জুর করা হয়েছে।

এ নিয়ে ওই ঘটনায় ইউএনও এবং পুলিশের করা দুটি মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া ২২ আসামিসহ মোট ২৪ জনের জামিন হলো। আসামিপক্ষের আইনজীবী তালুকদার মো. ইউনুস প্রথম আলোকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

১৮ আগস্ট রাতে বরিশাল নগরের সিঅ্যান্ডবি সড়কে উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্সে শোক দিবসের ব্যানার অপসারণকে কেন্দ্র করে পুলিশ ও আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের মধ্যে রাতভর সংঘর্ষ হয়। এ সময় ইউএনওর সরকারি বাসভবনে হামলার ঘটনা ঘটে বলে ইউএনও অভিযোগ করেন।

পরদিন ইউএনও বাদী হয়ে মামলা করেন। এদিকে সরকারি কাজে বাধা ও পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে কোতোয়ালি মডেল থানার উপপরিদর্শক শাহজালাল মল্লিক আরেকটি মামলা করেন। দুটি মামলায় বরিশাল সিটির মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহকে প্রধান আসামি করা হয়। ২২ আগস্ট রাতে বিভাগীয় কমিশনার সাইফুল হাসানের সরকারি বাসভবনে প্রশাসন ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের বৈঠকে বিষয়টি সমঝোতা হয়। ওই ঘটনায় আনসার ও পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে আওয়ামী লীগের অন্তত ৩০ নেতা-কর্মী গুলিবিদ্ধ ও আহত হন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন