default-image

বরিশাল নগর ছাত্রলীগের সভাপতি জসিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে এক তরুণীর করা ধর্ষণের লিখিত অভিযোগ মামলা হিসেবে এজাহারভুক্ত হয়েছে। গতকাল বুধবার রাতে অভিযোগটি এজাহার হিসেবে গ্রহণ করে নগরের বিমানবন্দর থানা-পুলিশ।

বিষয়টি নিশ্চিত করে আজ বৃহস্পতিবার বিমানবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কমলেশ চন্দ্র হালদার বলেন, গত সোমবার রাতে ওই তরুণী লিখিত অভিযোগপত্র থানায় জমা দেওয়ার পর প্রাথমিক তদন্ত করা হয়। এরপর অভিযোগটি এজাহার হিসেবে গ্রহণ করা হয়। মামলাটির ক্রমিক নম্বর ১৩। মামলার পরবর্তী কার্যক্রম আইন অনুসারে চলবে। অভিযুক্ত আসামিকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

লিখিত অভিযোগে ওই তরুণী উল্লেখ করেন, বরিশাল নগর ছাত্রলীগের সভাপতি জসিম উদ্দিনের সঙ্গে তাঁর (তরুণী) আট বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিল। এর সূত্র ধরে ২০১৯ সালের ১০ সেপ্টেম্বর তরুণীর বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে তাঁকে ধর্ষণ করেন জসিম উদ্দিন। এতে তিনি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন। একপর্যায়ে বরিশাল জেনারেল হাসপাতালে এক নারী চিকিৎসকের মাধ্যমে তাঁর গর্ভপাত করানো হয়।

বিজ্ঞাপন

ওই তরুণীর দাবি, চলতি বছরের ৫ মার্চ রাত সাড়ে ১১টায় তাঁর (তরুণীর) বাড়িতে গিয়ে সারা রাত থাকেন জসিম উদ্দিন। এ সময় তাঁকে তিনবার ধর্ষণ করেছেন। এরপর থেকে বিয়ের জন্য চাপ দিলে জসিম উদ্দিন রাজি হচ্ছিলেন না।

নগর ছাত্রলীগের সভাপতি জসিম উদ্দিন শুরু থেকেই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন। তিনি বলেন, ‘ওই তরুণী আমার আত্মীয়। আমি সম্প্রতি বিবাহ করেছি। এরপর থেকে ওই তরুণী ষড়যন্ত্র করে আমাকে রাজনৈতিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার উদ্দেশ্যে এবং আমাকে ফাঁসানোর জন্য এসব করছে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন