বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অভিযানের সময় লঞ্চে মেয়াদোত্তীর্ণ অগ্ননির্বাপণ যন্ত্র, সঠিকভাবে বয়া না রাখা ও ইঞ্জিনরুমে যথাযথ নিরাপত্তাসামগ্রী না রাখার অপরাধে এমভি সুন্দরবন, পারাবাত ও কুয়াকাটা লঞ্চ থেকে ৮৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। লঞ্চ কর্তৃপক্ষ তা স্বীকার করে ক্ষমা চায়। এ অভিযানকে স্বাগত জানিয়েছেন সাধারণ যাত্রীরা।

এর আগে গত বুধবার রাতে বরিশাল নদীবন্দরে ঢাকাগামী লঞ্চে প্রথম অভিযান চালায় বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ। বুধবার রাত সাড়ে ৮টায় বরিশাল নদীবন্দর কর্মকর্তা ও বিআইডব্লিউটিএর যুগ্ম পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

বরিশাল ঢাকা নৌ রুটের অ্যাডভেঞ্চার-১ লঞ্চ থেকে অভিযান শুরু করেন কর্মকর্তারা। এরপর বরিশাল নদীবন্দরে ঢাকাগামী বিলাসবহুল সব লঞ্চেই অভিযান পরিচালনা করা হয় এবং সতর্ক করা হয় লঞ্চমালিক, মাস্টার ও চালকদের।

বিআইডব্লিউটিএর যুগ্ম পরিচালক ও বরিশাল নদীবন্দর কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, সদর দপ্তরের নির্দেশে লঞ্চগুলোতে অভিযান চালানো হয়। লঞ্চগুলোর সার্ভে সনদ ও অন্যান্য সব সরঞ্জাম যথাযথভাবে রয়েছে কি না, সেটি খতিয়ে দেখা হয়েছে। এ ছাড়া সব লঞ্চেই রান্নার গ্যাসের সিলিন্ডার সরিয়ে নিতে বলা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন