বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের এক আবাসিক ছাত্রী তাঁর স্বামীকে নিয়ে ক্যাম্পাসের পাশে আনন্দবাজার এলাকায় ঘুরতে গেলে জাহিদ হোসেন ওরফে জয় হোসেন ও তাঁর সহযোগীরা স্বামীসহ ওই ছাত্রীকে আটক করেন। পরে জাহিদের নেতৃত্বে ওই ছাত্রীর স্বামীকে মারধর করা হয়।

এ খবর ছড়িয়ে পড়লে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হলের শিক্ষার্থীরা ঘটনার প্রতিবাদে ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। ঘটনার প্রতিবাদে রাত নয়টার দিকে বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়ক অবরোধ করেন এবং ইউপি সদস্য সাইদুল আলম তাঁর সহযোগী জাহিদ হোসেনের বাড়ি ভাঙচুর করেন। পরে রাত সাড়ে ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ও পুলিশের আশ্বাসে বিক্ষোভ কর্মসূচি স্থগিত করেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। আসামিদের গ্রেপ্তারের জন্য আজ বুধবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত আলটিমেটাম দিয়েছিলেন শিক্ষার্থীরা। তবে আজ আর মহাসড়ক অবরোধ কর্মসূচি পালন করেননি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ছাদেকুল আরেফিন বলেন, বর্তমানে একাডেমিক কার্যক্রমসহ ক্যাম্পাসের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। তিনি এ ঘটনার যথাযথ বিচার দাবি করেন।

ঘটনার পর থেকে সাইদুল আলম ও জাহিদ হোসেন গা ঢাকা দিয়েছেন। তাই এ বিষয়ে তাঁদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসাদুজ্জামান বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তবে বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। দোষী ব্যক্তিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন