default-image

আধিপত্য বিস্তার নিয়ে পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার মদনপুরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের (একাংশ) যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসানকে (২৫) কুপিয়ে গুরুতর জখম করা হয়েছে। এ সময় দুই পক্ষের অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছেন। গত রোববার রাতে মদনপুরা দরগাবাড়ি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। সোমবার মেহেদী হাসানকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকার একটি হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

গুরুতর আহত মেহেদী হাসানকে রোববার দিবাগত রাত ১২টার দিকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়। সেখান থেকে ওই রাতেই তাঁকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। তাঁর অবস্থার অবনতি হলে সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সোমবার তাঁকে ঢাকার একটি হাসপাতালে পাঠানো হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা কর্মকর্তা মো. তাসিফুল ইসলাম বলেন, ‘তাঁর (মেহেদী হাসান) বাঁ হাতের কনুইয়ের ওপরের অংশ থেকে নিচের দিকে প্রায় ১৫ সেন্টিমিটার মাংস কেটে হাড় বেরিয়ে গেছে এবং বাঁ হাতের মাঝখানের তিনটি আঙুলের হাড় কেটে গেছে। মাথায় কোপের দাগ রয়েছে। তাঁকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

বিজ্ঞাপন

দলীয় ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে গত রোববার রাতে মদনপুরা ইউনিয়নের দরগাবাড়ি এলাকায় একটি ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠানে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। ওই ঘটনার জেরে রাত ১১টার দিকে মেহেদী হাসানের ওপর বাউফল সদর ইউনিয়নের ছাত্রলীগের সমাজসেবাবিষয়ক সম্পাদক মো. বেল্লাল হোসেনের (২৫) নেতৃত্বে ১০-১২ জনের একটি দল হামলা চালালে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। ওই সময় মেহেদী হাসানকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতর জখম করা হয়।

এ ব্যাপারে বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন