default-image

পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার ধূলিয়া ইউনিয়নের মেহেন্দিপুর গ্রামে মো. শহিদুল ইসলাম (৪৫) নামের এক শিক্ষকের হাত-পা বেঁধে নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল বুধবার দিবাগত রাত পৌনে একটার দিকে ওই শিক্ষকের বাসভবনে এ ঘটনা ঘটে।

শহিদুল ইসলাম উপজেলার কালিশুরী ইউনিয়নের ছিটকা মহসিন উদ্দিন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক।

শহিদুল ইসলাম বলেন, বুধবার রাতে তারাবিহর নামাজ শেষে রাতের খাবার খেয়ে তিনি ঘুমিয়ে পড়েন। পাশের কক্ষে স্ত্রী নাহিদা আক্তার (৩৮), ছেলে মো. নাজমুল ইসলাম (১২) ও মেয়ে জান্নাতুল ইসলাম (১৬) ঘুমিয়ে ছিলেন। রাত পৌনে একটার দিকে মুখোশ পরা চার-পাঁচজন দুর্বৃত্ত তাঁর কক্ষে ঢুকে বলে, ‘চিৎকার করলে এক কোপে মেরে ফেলব’। এই বলে আমার হাত-পা বেঁধে ফেলে তারা। স্ত্রী ও সন্তানদেরও অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ফেলে। পরে দুর্বৃত্তরা ঘরের আলমারিতে থাকা ৩০ হাজার টাকা ও প্রায় সাড়ে পাঁচ ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে যায়।

শহিদুল ইসলাম ধারণা করছেন, দরজা খুলে নামাজ পড়তে যাওয়ার সময় এক দুর্বৃত্ত ঘরে ঢুকে লুকিয়ে ছিল। পরে তিনি দরজা খুলে অন্য দুর্বৃত্তদের ঘরে ঢোকায়।

বাউফল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আল মামুন বলেন, এ বিষয়ে কেউ কোনো অভিযোগ করেনি। তবুও খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন