বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পঞ্চম ধাপে ৫ জানুয়ারি এ ইউপিতে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। আনোয়ার হোসেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাচনে তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন আরেক বিদ্রোহী প্রার্থী শাফিনুর নাহার।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গতকাল সন্ধ্যায় আনোয়ার হোসেন ইউনিয়ন পরিষদে একটি সালিস শেষ করে কয়েকজন সমর্থককে নিয়ে নিজ বাড়িতে ফিরছিলেন। এ সময় আনোয়ার হোসেন ও তাঁর সমর্থকেরা শাফিনুর নাহারের বাড়ির সামনে পৌঁছালে তাঁদের গাড়ির গতিরোধ করে শাফিনুর নাহার, তাঁর স্বামী আবদুল বারী এবং তাঁদের দুই মেয়ে ও একজন স্বজন লাঠি দিয়ে তাঁদের এলোপাথাড়িভাবে মারধর করেন। এতে আনোয়ার হোসেনসহ তাঁর দুই সমর্থক আহত হন। এর মধ্যে ওই দুই সমর্থক বর্তমানে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন।

ঘটনার পর গতকাল রাতেই আনোয়ার হোসেনের ভাই কামাল হোসেন বাদী হয়ে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী, তাঁর স্বামী, কন্যাসহ পরিবারের লোকজনদের আসামি করা হয়েছে।

আনোয়ার হোসেন অভিযোগ করে বলেন, নির্বাচনে পরাজিত হয়ে ক্ষোভে তাঁকে হত্যার জন্য হামলা করা হয়েছে। তিনি বলেন, ‘ভোটাররা ভোট দিয়ে বিজয়ী করেছেন, এতে আমার অপরাধ কী! এ রকম জঘন্যতম কাজ করবেন, সেটা ভাবতে পারিনি।’

তবে আবদুল বারী অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, গতকাল সন্ধ্যায় তিনি ও তাঁর স্ত্রী রাজশাহীতে অবস্থান করছিলেন। তাঁরা কীভাবে হামলা করলেন। ঘটনাটি সাজানো বলে তিনি দাবি করেন।

জানতে চাইলে বাগমারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাক আহম্মেদ বলেন, চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনের ও তাঁর সমর্থকদের ওপর হামলার ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত করে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন