default-image

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলায় রাতে ঘুমন্ত মা-বাবার পাশ থেকে নিখোঁজ হওয়া ১৭ দিনের নবজাতক সোহানা আক্তার হত্যার ঘটনায় তার বাবাকে গ্রেপ্তার দেখিয়েছে পুলিশ। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে তাঁকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। গ্রেপ্তার ওই ব্যক্তির নাম সুজন খান।

মোরেলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, শিশুটি নিখোঁজের খবর পাওয়ার পর থেকেই জড়িতদের ধরতে পুলিশ তৎপর ছিল। বুধবার সকালে পুকুর থেকে সোহানার লাশ উদ্ধারের পর সন্দেহভাজন হিসেবে তার বাবা সুজন খান, চাচা রিপন খান ও তাঁদের ভগ্নিপতি হাসিব শেখকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের পর শিশুটির বাবা সুজন খানকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও তিনজনকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বৃহস্পতিবার দুপুরে পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায় বলেন, শিশুটি অপহরণ ও লাশ উদ্ধারের ঘটনায় করা মামলায় তার বাবাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। তিনজনের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করে দুজনকে ছেড়ে দেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন

বাগেরহাটের সিভিল সার্জন কে এম হুমায়ুন কবির বলেন, নবজাতকের লাশের ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। তার মাথায় আঘাতের চিহ্ন ছিল। মাথায় আঘাতের কারণে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হয়ে তার মৃত্যু হয়েছে।

রোববার দিবাগত রাতে মোরেলগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের গাবতলা গ্রামে ঘুমন্ত মা-বাবার পাশ থেকে নিখোঁজ হয় ১৭ দিনের নবজাতক সোহানা। ঘটনার পর পরিবার দাবি করে, কে বা কারা শিশুটিকে চুরি করে নিয়ে গেছে। এ ঘটনায় সোমবার রাতে সোহানার দাদা আলী হোসেন খান বাদী হয়ে ওই ঘটনায় অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে মোরেলগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি অপহরণের মামলা করেন। নিখোঁজ হওয়ার তিন দিন পর বুধবার সকালে সুজন খানের বাড়ির পাশের পুকুর থেকে সোহানার লাশ উদ্ধার করা হয়।

মন্তব্য পড়ুন 0