বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় লোকজন জানান, কারখানার ভেতরে তাঁদের ঢোকার কোনো সুযোগ নেই। তাই ভেতরের পরিস্থিতি তাঁরা পুরোপুরি বুঝতে পারছেন না। তবে আগুন ও ধোঁয়ার বড় কুণ্ডলী দেখা যাচ্ছে। এদিকে অগ্নিকাণ্ডের কারণ বা প্রাথমিকভাবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ সম্পর্কে কিছু জানাতে পারেনি ফায়ার সার্ভিস।

ঘটনাস্থলে থেকে যাত্রাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ মতিন বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, ‘আগুন অনেকটাই নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আছে। কারখানার যেখানে আগুন, সেখানেই তেলের গোডাউন আছে। তেলের আগুন নেভাতে ফোম দরকার হয়। খুলনা থেকে ফোমসহ ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট মাত্রই ঘটনাস্থলে পৌঁছাল। আশা করছি, দ্রুত সময়ে আগুন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আসবে।’

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স বাগেরহাট কার্যালয়ের উপসহকারী পরিচালক গোলাম সরোয়ার প্রথম আলোকে বলেন, সাড়ে নয়টার দিকে আগুন লাগার খবর পেয়েছেন তাঁরা। বর্তমানে সেখানে ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট কাজ করেছে। ফোম ও বালু দিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চলছে। আগুন ছড়িয়ে না পড়লেও তেল থাকায় আগুন নেভাতে বেগ পেতে হচ্ছে। এদিকে ফোম নিয়ে ফায়ার সার্ভিসের আরও দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন