বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মিছিল থেকে আটক জামায়াত সমর্থকেরা হলেন উপজেলার আড়পাড়া গ্রামের রাজিব হোসেন (৩০), হাবাসপুর গ্রামের শফিকুল ইসলাম (২৫), খায়েরহাট গ্রামের হাফিজুর রহমান (৪১), ঢাকাচন্দ্রগাথী গ্রামের সেকেন্দার আলী (৬০), জোতরাঘব গ্রামের খোসবুর রহমান (৩৮), জোতনশী গ্রামের আবদুল মান্নাফ (৩০) ও চণ্ডীপুর গ্রামের নাসির উদ্দিন (৪৮)।

স্থানীয় লোকজন জানান, পৌর জামায়াতে ইসলামীর আমির সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে মদের লাইসেন্স বাতিলের দাবিতে আজ বিকেলে বাঘা পৌরসভার মোড় থেকে একটি ঝটিকা মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি নিয়ে তাঁরা বাঘা মাজার এলাকায় যান। খবর পেয়ে বাঘা থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে মিছিলকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়তে থাকেন। তাঁদের হামলায় পুলিশের পাঁচ সদস্য আহত হয়েছেন।

বাঘা পৌর জামায়াতের আমির সাইফুল ইসলাম দাবি করেন, মদের লাইসেন্স বাতিলের দাবিতে তাঁরা মাজার এলাকায় একটি মিছিল বের করেন। এ সময় পুলিশ ধাওয়া করে তাঁদের সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে।

তবে এ বিষয়ে বাঘা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাজ্জাদ হোসেন বলেন, ঘটনাস্থল থেকে নির্বিঘ্নে পালানোর জন্য জামায়াতের নেতা-কর্মীরা পুলিশের ওপর হামলা করেন। তাঁরা আগে থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছিলেন। এ সময় পুলিশের ওপর তাঁরা বৃষ্টির মতো ইটপাটকেল ছুড়তে থাকেন। সেই সঙ্গে পাঁচটি ককটেল ছোড়েন। এতে পুলিশের পাঁচজন সদস্য আহত হয়েছেন। তাঁদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

ওসি সাজ্জাদ হোসেন আরও বলেন, এ ঘটনায় জামায়াতের সাতজনকে আটক করা হয়েছে। তাঁদের বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছে। বৃহস্পতিবার সকালে তাঁদের আদালতে সোপর্দ করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন