মানবাধিকার কমিশন গতকাল বুধবার দেওয়া এক বিবৃতিতে বলেছে, প্রায় ৩৫০ একর জুমচাষের প্রাকৃতিক বন পুড়িয়ে দেওয়া, পানির ঝরনা বিনষ্ট করা এবং পরবর্তী সময় এর ফলে সৃষ্ট খাদ্য ও সুপেয় পানির অভাবে তিনটি গ্রামের মানুষের অত্যধিক কষ্টে জীবনযাপনের বিষয়টি নিয়ে কমিশন ভাবছে। খাদ্যসংকটের কারণে স্থানীয় জনগোষ্ঠীর কিছু মানুষ গাছের লতাগুল্ম খেয়ে রয়েছে বলেও জানা যায়। এসব প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করা হয় যে লামা রাবার ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড দীর্ঘদিন থেকে উক্ত এলাকার ম্রো ও ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীকে উচ্ছেদের চেষ্টা করছে। এ ছাড়া স্থানীয় লোকজনের নামে বিভিন্ন সময় মামলা দিয়ে দেশ ছাড়া করার চেষ্টা করা হচ্ছে মর্মেও উল্লেখ রয়েছে। এ বিষয়ে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সংগৃহীত তথ্যেও এসব অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা লক্ষ করা গিয়েছে।

কমিশনের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, স্থানীয়ভাবে ত্রাণ বিতরণ হলেও তা পর্যাপ্ত নয়। ক্ষতিগ্রস্ত সব পরিবারকে পর্যাপ্ত খাদ্য, পানি ও প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে গৃহনির্মাণসহ প্রয়োজনীয় সহায়তা দেওয়ার জন্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়য়ের সচিবকে বলা হয়েছে। এ ছাড়া স্থানীয় জনগোষ্ঠীকে যাতে কোনোভাবেই কোনো হয়রানি করা না হয় এবং অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিবকে বলা হয়। এর পাশাপাশি বিষয়টি সার্বিক তত্ত্বাবধান এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আদেশের অনুলিপি চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনারকে দেওয়া হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন