default-image

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলায় বান্ধবীর বাড়িতে বেড়াতে আসা এক কিশোরী (১৬) সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় গতকাল বৃহস্পতিবার শ্রীপুর থানায় মামলা হলে পুলিশ দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে। আজ শুক্রবার তাঁদের আদালতে হাজির করা হয়েছে।

গ্রেপ্তার দুজন হলেন প্রধান আসামি মো. সুজন (২৪) ও বাবুল হোসেন (৪১)। সুজনের বাড়ি শ্রীপুরের কাওরাইদ ইউনিয়নের ধামলই গ্রামে। তিনি ওই গ্রামের মজনু মিয়ার ছেলে। বাবুল একই গ্রামের হাসেন আলীর ছেলে। মামলায় চারজনকে আসামি করা হয়েছে।
মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, ১৭ মার্চ বুধবার শ্রীপুরের একটি গ্রামে বান্ধবীর ভাড়া বাড়িতে বেড়াতে আসে ওই কিশোরী। বুধবার দিনগত রাত দুইটায় ভাড়া বাড়ির ব্যবস্থাপক মো. দুলু (৪৫) ও মো. মুন্না (২২) কিশোরীর বান্ধবীকে ডেকে তোলেন। ওই কক্ষে বান্ধবীর সঙ্গে ঘুমাচ্ছিলেন কিশোরী। ঘুম থেকে উঠে দরজা খুললে কিশোরীর বান্ধবীকে পাশের একটি ঘরে নিয়ে আটকে রাখা হয়। এ সময় ওই কিশোরীর কক্ষে মো. সুজন ও মো. মুন্নাকে প্রবেশ করিয়ে বাইরে থেকে তালাবদ্ধ করে চলে যান দুলু ও বাবুল। পরে সুজন ও মুন্না ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও শ্রীপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) গোলাম সারোয়ার শুক্রবার প্রথম আলোকে বলেন, বৃহস্পতিবার নির্যাতনের শিকার ওই কিশোরী শ্রীপুর থানায় মামলা করেছে। মামলার দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শুক্রবার তাদের আদালতে পাঠানো হয়েছে। নির্যাতনের শিকার শিশুর স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন