default-image

ছেলে মানসিক ভারসাম্যহীন। তাই তাঁকে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখা হয়েছিল। সেই শিকল খুলে ছেলে বাবার ঘরে ঢুকে তাঁকে পিটিয়ে হত্যা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনা ঘটেছে গত শনিবার টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার হেংগারচালা গ্রামে। এ ঘটনায় পুলিশ ওই ছেলেকে গ্রেপ্তার করেছে।

নিহত ব্যক্তির নাম ছোমেদ আলী (৫০)। তাঁর বাড়ি উপজেলার ধলাপাড়া ইউনিয়নের হেংগারচালা গ্রামে। তাঁকে হত্যার অভিযোগে তাঁর ছেলে হাসমত আলীকে (৩৫) গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আজ রোববার তাঁকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে ঘাটাইলের ধলাপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, অতিরিক্ত মাদক সেবনের কারণে হাসমত মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েছিলেন। এ জন্য দেড় বছর ধরে তাঁকে শিকল দিয়ে বেঁধে রেখেছিল তাঁর পরিবার। শনিবার রাত ১০টার দিকে কৌশলে শিকল খুলে তিনি তাঁর বাবা ছোমেদ আলীর ঘরে ঢুকে তাঁকে লাঠিপেটা করতে থাকেন। একপর্যায়ে তিনি ঘরে থাকা কোদাল দিয়ে তাঁর বাবার মাথায় আঘাত করেন। এতে ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়। এ সময় তাঁর মা বাধা দিলে তাঁকেও তিনি পিটিয়ে আহত করেন। তাঁদের চিৎকার শুনে এলাকাবাসী এগিয়ে গিয়ে হাসমতকে আটক করেন। পরে তাঁরা তাঁকে পুলিশে সোপর্দ করেন। পুলিশ শনিবার রাতেই ঘটনাস্থলে গিয়ে ছোমেদ আলীর লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) আরিফুল হাসান জানান, নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় ছোমেদ আলীর স্ত্রী হাসনা বেগম বাদী হয়ে রোববার ছেলে হাসমতকে আসামি করে থানায় মামলা করেছেন। হাসমতকে এ হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়। আদালত তাঁকে জেলহাজতে পাঠিয়েছেন।

মন্তব্য পড়ুন 0