নিহত মাহমুদুল হাসান রংপুর নগরীর কেরানীপাড়া এলাকার বাসিন্দা পুলিশ সদস্য আবদুল মান্নানের ছেলে। তিনি গঙ্গাচড়া সরকারি কলেজের অনার্স তৃতীয় বর্ষে পড়তেন। পাশাপাশি মোবাইল ব্যাংকিং সেবা প্রতিষ্ঠান বিকাশে চাকরি করতেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সকাল সাড়ে সাতটার দিকে রংপুর পুলিশ লাইনস মসজিদ মাঠে ঈদের জামাতে বাবার সঙ্গে নামাজ পড়েন মাহমুদুল। সেখান নামাজ শেষে মোটরসাইকেলে করে কোরবানির পশু জবাই করতে চাচার বাড়ি পরশুরামে যান। কোরবানি শেষে মাংস কাটার জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম নিতে মোটরসাইকেলে করে কেরানীপাড়ায় আসার পথে পাকারমাথা এলাকায় একটি মাইক্রোবাস তাঁর মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দেয়। এতে মোটরসাইকেল থেকে সড়কে ছিটকে পড়ে ঘটনাস্থলেই মাহমুদুল মারা যান।

আবদুল মান্নান বলেন, ‘এই কষ্ট কীভাবে সইব? আমরা বাবা-ছেলে একসঙ্গে সকালে ঈদের জামাতে নামাজ পড়েছি।’

রংপুর মেট্রোপলিটন কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হোসেন আলী জানান, মাইক্রোবাসচালক পলাতক। নিহত তরুণের লাশ রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। পরে পরিবারের কাছে তরুণের লাশ হস্তান্তর করা হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন