বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তবে মতিয়ার রহমান আজ বুধবার দুপুরে প্রথম আলোকে বলেন, তিনি এখনো চিঠি হাতে পাননি। তবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে চিঠির কপি দেখেছেন। এদিকে জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক রফিকুল ইসলাম খান অব্যাহতি দেওয়ার চিঠি পাঠানোর বিষয়টি প্রথম আলোকে নিশ্চিত করেছেন।

সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে অব্যাহতি প্রদান করার সিদ্ধান্তের সঙ্গে সাংগঠনিক পরিচয়সহ দলীয় সব পরিচয় প্রদান থেকে বিরত থাকার জন্য মতিয়ার রহমানকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ওই চিঠি সূত্রে জানা যায়, ২১ সেপ্টেম্বর মতিয়ার রহমানের বিরুদ্ধে বাসাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জেলা নেতাদের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। সেখানে মতিয়ার রহমানের বিরুদ্ধে দুটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্মেলনে গোলযোগ সৃষ্টির অভিযোগ করা হয়েছে। গত রোববার টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী পরিষদের সভায় বিষয়টি উত্থাপন করা হয়। পরে এ নিয়ে আলোচনা-পর্যালোচনার পর নেতাদের নীতিগত সিদ্ধান্তে মতিয়ার রহমানকে সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে অব্যাহতি প্রদান করার সিদ্ধান্ত হয়। সেই সঙ্গে সাংগঠনিক পরিচয়সহ দলীয় সব পরিচয় প্রদান থেকে বিরত থাকার জন্য মতিয়ার রহমানকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে মতিয়ার রহমান বলেন, তাঁকে কোনো শোকজ করা হয়নি। আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেওয়া হয়নি। পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া সম্পূর্ণ অগঠনতান্ত্রিক। তিনি কেন্দ্রীয় নেতাদের বিষয়টি লিখিতভাবে জানাবেন বলে জানান।

গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মতিয়ার রহমান চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন পেয়েছিলেন। কিন্তু উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী অলিদ ইসলাম ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী হয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এরপর কাজী অলিদকে দলীয় পদ থেকে অব্যাহতি দিয়ে শামছুল আলমকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন