default-image

ঢাকার সাভার উপজেলার আশুলিয়ায় এক ছাত্রীকে (১২) ধর্ষণের অভিযোগে মাদ্রাসার অধ্যক্ষকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গত বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর মিরপুর থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। আজ শুক্রবার তিনি ধর্ষণের কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

গ্রেপ্তার মাদ্রাসা অধ্যক্ষের নাম তৌহিদ বিন আজহার (৪৫)।

আশুলিয়া থানা–পুলিশ জানায়, আশুলিয়ার দ্বিতল মাদ্রাসা ভবনটির নিচতলার একাংশে থাকেন অধ্যক্ষ তৌহিদ বিন আজহার। অপর অংশসহ দ্বিতীয় তলায় থাকেন শিক্ষার্থীরা। ৮ জানুয়ারি ভোরে ১২ বছরের এক ছাত্রীকে চা বানানোর জন্য কক্ষে ডেকে পাঠান অধ্যক্ষ। এরপর অধ্যক্ষ ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করেন। কিন্তু আবাসিক ওই মাদ্রাসা থেকে বের হতে না পারায় ওই ছাত্রী বিষয়টি তার অভিভাবকদের জানাতে পারেনি। পরে এক সহপাঠীর মাধ্যমে চিরকুট পাঠিয়ে অভিভাবকদের বিষয়টি অবহিত করে। বিষয়টি জানার পর ছাত্রীর বাবা গত বুধবার আশুলিয়া থানায় ওই অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আল মামুন বলেন, মামলা দায়েরের পর বৃহস্পতিবার রাতে মিরপুর থেকে অধ্যক্ষ তৌহিদ বিন আজহারকে গ্রেপ্তার করা হয়। শুক্রবার তাঁকে ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে হাজির করা হয়। ১৬৪ ধারায় দেওয়া জবানবন্দিতে তিনি ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছেন। স্বীকারোক্তি দেওয়ার পর আদালত তাঁকে জেলহাজতে পাঠিয়ে দেন।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন