পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ক্ষিতিশ রেললাইন পার হচ্ছিলেন। এ সময় ট্রেনের হর্ন দেওয়ার পরও তিনি লাইনের ওপর থেকে সরে যাননি। ট্রেন যাওয়ার পর রেললাইনের পাশে তাঁর বিচ্ছিন্ন লাশ পড়ে থাকতে দেখেন লোকজন। পরে ক্ষিতিশের ছেলে শুভ পাহান লাশটি তাঁর বাবার বলে শনাক্ত করেন।

শুভ পাহান বলেন, ‘বাবা কাজ করে বাড়ি ফিরছিলেন। নেশাগ্রস্ত থাকার কারণে ট্রেন আসা বুঝতে পারেননি। রেললাইন পারাপারের সময় বাবা ট্রেনে কাটা পড়ে মারা যান।’

সান্তাহার রেলওয়ে থানা–পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাকিউল আজম বলেন, লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন