বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ওই মামলায় রামেশ্বরপুর ইউপির ২ নম্বর ওয়ার্ডের পরাজিত সদস্য প্রার্থী ফেরদৌস হাসানসহ ১১ জনকে আসামি করে মামলা হয়েছে। ওই মামলা হওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে গাবতলী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জিয়া লতিফুল ইসলাম বলেন, মামলায় এখনো কোনো আসামি গ্রেপ্তার হননি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, জাকির হোসেন গাবতলী উপজেলার রামেশ্বরপুর ইউপির ২ নম্বর ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত সদস্য সাইদুল ইসলামের সমর্থক ছিলেন। তিনি উপজেলার জাইগুলি গ্রামের বাসিন্দা ও লাইভ টিভি নামে একটি ইউটিউব চ্যানেল পরিচালনা করতেন।

গত বুধবার নির্বাচন চলাকালে জাকির হোসেনের ওপর হামলার ঘণ্টাখানেক আগে তিনি নিজের ইউটিউব চ্যানেলে জাইগুলি উচ্চবিদ্যালয় ভোটকেন্দ্র থেকে ভোট গ্রহণের চিত্র লাইভ করেন। তিনি সেখানে গাবতলী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রফি নেওয়াজ খানেরও সাক্ষাৎকার প্রচার করেন। এরপর বেলা আড়াইটার দিকে রামেশ্বরপুর ইউনিয়নের জাইগুলি গ্রামে সদস্য পদপ্রার্থী ফেরদৌস হাসানের সমর্থকদের হামলা ও ছুরিকাঘাতে তিনি নিহত হন।

পুলিশ ও কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, রামেশ্বরপুর ইউপিতে নির্বাচনে ২ নম্বর ওয়ার্ডে শেখ সাইদুল ইসলাম ও ফেরদৌস হাসান সদস্য প্রার্থী ছিলেন। জাকির সকাল থেকেই জাইগুলি উচ্চবিদ্যালয় ভোটকেন্দ্র থেকে ভোট গ্রহণের চিত্র ইউটিউব চ্যানেলে লাইভ করতে থাকেন। জাকির হোসেন শেখ সাইদুল ইসলামের সমর্থক। তিনি তাঁর পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে লাইভে মন্তব্য করেছেন, এমন অভিযোগ তুলে ফেরদৌসের সমর্থকেরা তাঁর ওপর হামলা করেন। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে নেওয়ার পর চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন