বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সান্তাহার নেসকোর নির্বাহী প্রকৌশলী মো. রোকনুজ্জামান জানান, আজ দুপুরে উপসহকারী প্রকৌশলী আল মামুনের নেতৃত্বে ওই দপ্তরের সাত থেকে আটজন কর্মী দমদমা গ্রামে বিদ্যুৎ বিল বকেয়া থাকা গ্রাহকদের বিদ্যুৎ–সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে যান। এ সময় ওই গ্রামের মুক্তার হোসেনের নেতৃত্বে একদল দুর্বৃত্ত সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে বাধা দেয়। আল মামুন প্রতিবাদ করলে দুর্বৃত্তরা তাঁর ওপর চড়াও হয়ে তাঁকে বেধড়ক মারধর করতে শুরু করে। এ সময় আল মামুনকে রক্ষা করতে গেলে নেসকোর অন্যান্য কর্মচারীদের ওপর হামলা চালানো হয়।

এর মধ্যে আল মামুন দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করলে দুর্বৃত্তরা তাঁকে আবারও মারধর করে। একপর্যায়ে হামলাকারীরা গাড়িচালক আবদুল্লাহর কাছ থেকে গাড়ির চাবি কেড়ে নেয়। পরে ওই গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য ও সান্তাহার প্রেসক্লাবের সভাপতি গোলাম আম্বিয়া ও স্থানীয় কয়েকজন যুবকের সাহায্যে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

রোকনুজ্জামান বলেন, হামলাকারীদের চিহ্নিত করার চেষ্টা চলছে। হামলাকারীদের সবার বিরুদ্ধে থানায় মামলা করা হবে।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে মুক্তার হোসেন বলেন, তিনি ওই সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন। তবে তিনি হামলায় নেতৃত্ব বা হামলায় অংশ নেননি। নেসকোর কর্মকর্তা–কর্মচারীরা ঘুষ দাবি করেছিলেন বলে স্থানীয় লোকজন তাঁদের মারধর করেছেন বলে তিনি দাবি করেন।

অভিযুক্ত মুক্তার হোসেন দমদমা গ্রামের বাসিন্দা। তিনি সান্তাহার ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির সভাপতি।

আদমদীঘি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জালাল উদ্দীন বলেন, বিষয়টি নেসকোর নির্বাহী প্রকৌশলী মৌখিকভাবে তাঁকে জানিয়েছেন। এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন