বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দলীয় সূত্র জানায়, কেন্দ্রীয় নির্দেশনা ছিল, আওয়ামী লীগের কোনো নেতা-কর্মী দলের বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে প্রত্যক্ষ অথবা পরোক্ষভাবে কাজ করতে পারবেন না। নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর পক্ষে মাঠে নামবেন। এই নির্দেশনা অমান্য করে শফিক মিয়া সাবরাং ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও দলের বিদ্রোহী প্রার্থী নুর হোসেনের পক্ষে কাজ করছেন। এ জন্য তাঁকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। নুর হোসেন সাবরাং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও শফিক মিয়ার জামাতা। এদিকে চকরিয়া পৌরসভার দলীয় মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী জিয়াবুল হকের পক্ষে কাজ করায় পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহেদুল ইসলাম লিটুকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

দুই নেতাকে বহিষ্কারের বিষয়টি নিশ্চিত করে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান বলেন, দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে দলীয় শৃঙ্খলাবিরোধী কার্যক্রমে লিপ্ত থাকায় তাঁদের স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করার জন্য আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ বরাবর সুপারিশ পাঠানো হবে।

২০ সেপ্টেম্বর কক্সবাজারের দুটি পৌরসভা (চকরিয়া ও মহেশখালী) এবং টেকনাফ, মহেশখালী, কুতুবদিয়া ও পেকুয়া উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

এর আগে ১৫ সেপ্টেম্বর দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় জেলার টেকনাফ, মহেশখালী ও পেকুয়া উপজেলার ১১ জন ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থীকে দল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন