বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বহিষ্কৃত প্রার্থীরা হলেন উপজেলার ৩ নম্বর দিঘীরপাড় পূর্ব ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল বাছিত, একই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুল মোমিন চৌধুরী, ৪ নম্বর সাতবাঁক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুন নূর, উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য শামছুদ্দিন বাবুল মহুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মঞ্জুর আলম, সিলেট মহানগর শ্রমিক লীগের সহসভাপতি এনামুল হক, কানাইঘাট সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শামসুল ইসলাম, একই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য আবুল কালাম, ৭ নম্বর বণীগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য বাবুল রানা চৌধুরী, ৯ নম্বর রাজাগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সোহেল রানা চৌধুরী, একই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক খালেদ হাসান, রাজাগঞ্জ ইউনিয়ন কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক লুৎফুর রহমান চৌধুরী ও একই ইউনিয়নের বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক আবদুল আলীম।

এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নাসির উদ্দিন খান বলেন, দলের মনোনীত প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় কানাইঘাট উপজেলার ১৩ জনকে দলীয় পদ ও প্রাথমিক সদস্যপদ থেকে সরাসরি বহিষ্কার করা হয়েছে। এর আগে গঠনতন্ত্রের ৪৭ ধারার ১১ উপধারা অনুযায়ী দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণে বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য জেলা আওয়ামী লীগের কাছে সুপারিশ করে উপজেলা আওয়ামী লীগ। এরপরও যদি কোনো নেতা-কর্মী বহিষ্কৃতদের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেন, তাহলে তাঁদের বিরুদ্ধেও সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বহিষ্কৃত ব্যক্তিরা কানাইঘাট উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নে দলীয় প্রার্থীর বিপক্ষে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। আগামী ৫ জানুয়ারি এসব ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন