এক আত্মীয়ের বাসা থেকে ওই ট্রেনেই বাড়ি ফিরছিল সুজনের ছোট ভাই মো. বাবু (১২)। বাবু জানায়, ট্রেনটি বাবুপাড়ায় পৌঁছে দীর্ঘক্ষণ ধরে হর্ন বাজানো শুরু করে। অন্য সবার মতো জানালা দিয়ে বাবুও সামনে দেখার চেষ্টা করছিল। রেললাইনে তখন একজন উল্টো দিকে মুখ ঘুরিয়ে বসে ছিল। পরে দিনাজপুর স্টেশনে নেমে বাবু আবার ইজিবাইক নিয়ে ঘটনাস্থলে যায়। সেখানে ট্রেনের নিচে কাটা পড়া লাশটি তাঁর ভাইয়ের বলে সে শনাক্ত করে। এদিকে নিহতের পরিবার জানিয়েছে, সুজন কানেও কম শুনতেন।

দিনাজপুর জিআরপি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এরশাদুর হক ভূঁইয়া জানান, কোনো অভিযোগ না থাকায় ময়নাতদন্ত ছাড়াই নিহত যুবকের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন