বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বন বিভাগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গন্ধগোকুল নামে প্রায় বিলুপ্ত প্রজাতির প্রাণীটি গত শুক্রবার সন্ধ্যায় বালিগ্রাম এলাকার একটি মুরগির খামার থেকে মুরগি শিকার করে খাচ্ছিল। বিষয়টি স্থানীয় লোকজন দেখতে পেয়ে প্রাণীটির ওপর হামলা চালায়। এ সময় স্থানীয় কয়েকজন যুবকের হাতে ধরা পড়ে গন্ধগোকুলটি। পরে তাঁরা একটি খাঁচায় প্রাণীটিকে বন্দী করে রাখেন। খবর পেয়ে রোববার সন্ধ্যায় বন বিভাগের সদস্যরা পশ্চিম বালিগ্রাম এলাকা গিয়ে গন্ধগোকুলকে উদ্ধার করে পার্শ্ববর্তী বরিশালের গৌরনদী উপজেলার একটি বনে অবমুক্ত করেন।

কালকিনি উপজেলা বন কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান খান সোমবার বিকেলে প্রথম আলোকে বলেন, ‘আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ সংঘের (আইইউসিএন) বিবেচনায় পৃথিবীর বিপন্ন প্রাণীর তালিকায় উঠে এসেছে এই প্রাণীটি। আফ্রিকা, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াসহ বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন প্রজাতির গন্ধগোকুলের বাস। বাংলাদেশের ২০১২ সালের বন্য প্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনের তফসিল-১ অনুযায়ী এ প্রজাতি সংরক্ষিত। তাই এটি ধরা বা শিকার করা সম্পূর্ণ বেআইনি।’

মাদারীপুর জেলার ভারপ্রাপ্ত বন কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম প্রথম আলোকে বলেন, ‘উদ্ধারকৃত প্রাণীটিকে অনেকটা বাগডাশের মতো দেখতে হলেও সেটি আসলে বাগডাশ নয়। এটির নাম গন্ধগোকুল। আমাদের দেশের বনজঙ্গলে প্রায়ই এই গন্ধগোকুলকে দেখা যায়। এরা খাদ্যশৃঙ্খলের গুরুত্বপূর্ণ অংশ এবং ফসলের ক্ষতিকারক পোকামাকড় খেয়ে জীবনযাপন করে থাকে। এ ছাড়া এই প্রাণী মানুষের কোনো ক্ষতি করে না, বরং উপকার করে থাকে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন