নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই এলাকার দুই বাসিন্দা বলেন, খাইরুল দীর্ঘদিন ধরে গ্রামের মসজিদে মুয়াজ্জিন হিসেবে নিয়োজিত আছেন। পাশাপাশি ধান কাটার মৌসুমে দৈনিক মজুরিতে দল বেঁধে ধান কাটার কাজ করেন। মাখনা গ্রামের কৃষক দুলাল মিয়া ও হক মিয়ার সঙ্গে একই গ্রামের এলাই মিয়ার একটি জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। ওই জমিতে এবার দুলাল মিয়া ও হক মিয়া ধান চাষ করেছেন।

গতকাল রাতে ওই জমির ধান কাটার জন্য দুলাল মিয়া ও হক মিয়া খাইরুলকে অনুরোধ করেন। কিন্তু দুই পক্ষের মধ্যে বিরোধ থাকার কারণে খাইরুল খেতের ধান কেটে দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এতে দুলাল ও হক মিয়ার লোকজন খাইরুলের ওপর ক্ষিপ্ত হন।

আজ সকালে খাইরুল ইসলাম গ্রামের সামনের হাওরে অন্যের জমিতে ধান কাটতে যান। এ সময় হক মিয়া ও তাঁর শ্যালক লিয়াকত আলী তাঁদের লোকজন নিয়ে সেখানে যান। এ সময় তাঁরা বিরোধপূর্ণ জমির ধান কাটার জন্য খাইরুলকে আবার চাপ দেন। কিন্তু তিনি ধান কাটতে রাজি না হলে উভয়ের মধ্যে তর্কবিতর্ক হয়। একপর্যায়ে হক মিয়া তাঁর শ্যালকসহ পাঁচ থেকে ছয়জন খাইরুলের হাতে থাকা ধান কাটার কাস্তে দিয়ে খাইরুলের গলায় কোপ দেন। পরে স্থানীয় লোকজন খাইরুলকে উদ্ধার করে মদন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ব্যাপারে মদন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মুহাম্মদ ফেরদৌস আলম বলেন, নিহত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি চলেছে। জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন