বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দুদক প্রধান কার্যালয়ের পরিচালক মীর মো. জয়নুল আবেদীন শিবলীর স্বাক্ষরে এক জরুরি পত্রে এ রেকর্ডপত্র চাওয়া হয়েছে।
এই কর্মকর্তা জানান, হাসপাতালটিকে কোভিড-১৯ সংকটের সময় চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের থাকার ব্যবস্থা সম্পর্কেও তথ্য জমা দিতে বলা হয়েছে।

গত ৯ আগস্ট করোনাকালে অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ অনুসন্ধানে কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালের বেশ কিছু নথিপত্র তলব করেছিল দুদক।

এর আগে ৩ আগস্ট দুদক হোটেল সুপার স্টার লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং মুগদা ৫০০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের পরিচালককে কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসা পরিষেবা সরবরাহে নিযুক্ত চিকিৎসক, নার্স ও অন্যান্য কর্মীর আবাসন, খাবারসহ বিভিন্ন তথ্য ও রেকর্ড জমা দিতে বলে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন