default-image

বাবা বিদেশে থাকার সুযোগে নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলায় কিশোরী মেয়েটির (১৫) অমতেই বিবাহ দিয়েছিলেন চাচা। পরে উপজেলা প্রশাসন অভিযান চালিয়ে বিয়ে ঠেকাতে না পারলেও আটক করা হয় মেয়ের চাচাকে। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে মেয়ের চাচাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
ভ্রাম্যমাণ আদালত ওই মেয়ের চাচার কাছ থেকে এই মর্মে মুচলেকাও নেন—মেয়ের বয়স ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত বাবার বাড়িতেই অবস্থান করতে হবে তাকে। উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের একটি গ্রামে মঙ্গলবার রাতে ওই বাল্যবিবাহ সম্পন্ন হয়।
সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আবু রাসেল ওই আদালত পরিচালনা করেন। গত ২২ অক্টোবর পৃথক আরেকটি বাল্যবিবাহের ঘটনায় উপজেলার বিয়াঘাট ইউনিয়নের বেড়গঙ্গারামপুর গ্রামে বর মাসুদ রানাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেছিলেন মো. আবু রাসেল।

বিজ্ঞাপন

মো. আবু রাসেল জানান, নাজিরপুর ইউনিয়নের ওই কিশোরী ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী ছিল। বাবা দেশের বাইরে থাকার সুযোগে মেয়ের মাকে বুঝিয়ে এক যুবকের সঙ্গে বিয়ে ঠিক করেছিলেন তার চাচা। মঙ্গলবার দুপুরে বিয়ের অন্য আনুষ্ঠানিকতা শেষ হলেও সন্ধ্যার পর বিয়ে পড়ানো হয়। স্থানীয় লোকজনের মাধ্যমে খবর পেয়ে সেখানে অভিযান চালিয়ে ঘটনা সত্যতা পান তাঁরা। কিন্তু অভিযানের আগেই মাওলানাসহ অন্যরা পালিয়ে যান। এ সময় আটক করা হয় মেয়ের চাচাকে।
ভ্রাম্যমাণ আদালতে দোষ স্বীকার করায় মেয়ের চাচাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। একই সঙ্গে মেয়ের বয়স ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত বাবার বাড়িতেই অবস্থান করতে হবে মেয়েটিকে, এ মর্মে তার চাচার কাছ থেকে নেওয়া হয় মুচলেকা।

মন্তব্য পড়ুন 0