বিজ্ঞাপন

পাটগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করোনা ফোকাল পারসন চিকিৎসা কর্মকর্তা কে এম তানজির আলম বলেন, করোনায় আক্রান্ত শিক্ষার্থীদের শরীরে কোনো উপসর্গ নেই। এ জন্য তিনজনই স্থলবন্দরের কাছের একটি আবাসিক হোটেলে আইসোলেশনে থাকবেন। তাঁদের নিবিড় পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। কোনো সমস্যা দেখা দিলে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এর আগে প্রথম দফায় গত বৃহস্পতি ও শুক্রবার কোয়ারেন্টিন থেকে ১২ ব্যক্তি ছাড়পত্র  পেয়েছেন। আজ আরও ২৩ ব্যক্তি ছাড়পত্র পেলেন।

পাটগ্রাম উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সূত্রে জানা গেছে, গত ২৬ এপ্রিল উপজেলা প্রশাসনের এক জরুরি সভায় ভারত থেকে ফিরে আসা বাংলাদেশিদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রাখার বিষয়ে আলোচনা করা হয়। এরপর থেকে ভারত থেকে আসা বাংলাদেশিদের স্থানীয় ছয়টি হোটেলে ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রাখা হচ্ছে। এ পর্যন্ত ভারত থেকে ২০২ জন বাংলাদেশে এসেছেন এবং ভারতে গেছেন ১১১ জন।

পাটগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সূত্রে জানা গেছে, জেলা সদর ও উপজেলা মিলে সাতটি আবাসিক হোটেল প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন কেন্দ্র করা হয়েছে। তা ছাড়া লালমনিরহাট নার্সিং ইনস্টিটিউট ও সদর হাসপাতালেও প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রাখা হচ্ছে। তা ছাড়া ওই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একটি কক্ষে পাঁচ শয্যাবিশিষ্ট আইসোলেশন সেন্টার প্রস্তুত রাখা হয়েছে। তবে যাঁদের ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে শেষ হয়েছে, তাঁদের নমুনা পরীক্ষা জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। সেই ফলাফল নেগেটিভ এলেই তাঁরা বাড়ি যাওয়ার ছাড়পত্র পাবেন।  

বুড়িমারী স্থলবন্দর পুলিশ অভিবাসন কেন্দ্রে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ভারত থেকে ফিরে আসা একজনসহ ২০২ জনকে ৯টি কেন্দ্রে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন