বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় সূত্র জানায়, রোববার বিকেলে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পূর্ব পাশে কুমিল্লা নগরের নন্দনপুর এলাকায় অগ্নিকাণ্ডে একটি বেকারি, একটি মুদি, দুটি সেলুন ও একটি পানের দোকান পুড়ে যায়। এ সময়ে মহাসড়কে অন্তত দেড় ঘণ্টা যান চলাচল ব্যাহত হয়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন ঘটনাস্থলে আসেন। একই সঙ্গে আগুন নেভানোর চেষ্টা করেন। তখন বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের প্রকৌশলীরা ঘটনাস্থলে এসে দেখতে পান, গ্যাসের লাইনে আগুন জ্বলছে।

নন্দনপুর এলাকার কয়েকজন বাসিন্দা বলেন, বৈদ্যুতিক তার স্পার্ক করে নিচে আগুন ধরে যায়। তাত্ক্ষণিক ওই আগুন কোনোভাবেই নেভানো যায়নি। ততক্ষণে পাঁচটি দোকান পুড়ে যায়। পরে দিবাগত রাত ২টা ৩০ মিনিটে নন্দনপুর এলাকায় গ্যাসের পাইপলাইনের তিনটি বাল্ব, কুমিল্লা ইপিজেড এলাকার একটি ও লাকসামের বিজরা এলাকার আরেকটি পাইপলাইনের বাল্ব বন্ধ করে দেওয়া হয়। এরপর আগুন নেভানোর কাজ শুরু করা হয়।

এই ঘটনায় রোববার দিবাগত রাত ২টা ৩০ মিনিট থেকে সোমবার বেলা ২টা ৪৫ মিনিট পর্যন্ত গ্যাস-সংযোগ বন্ধ রেখে বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের প্রকৌশলীরা গ্যাসের পাইপলাইন মেরামতের কাজ করেন। এরপর বিদ্যুতের খুঁটি সরিয়ে নেওয়ার পর গ্যাস সরবরাহ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের প্রকৌশল বিভাগের মহাব্যবস্থাপক প্রকৌশলী মো. আজহারুল আলম বলেন, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে একটি বৈদ্যুতিক খুঁটির নিচে ছিল বাখরাবাদের গ্যাসের পাইপলাইন। বিদ্যুৎ বিভাগ ওই পাইপলাইনের ওপরে খুঁটি বসায়। দীর্ঘদিন ওই খুঁটির নিচে লাইন থাকায় সেটি ক্ষয় হয়ে যায়। রোববার বেলা তিনটার দিকে হঠাৎ ওই এলাকায় অগ্নিকাণ্ড ঘটে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন