সজল আহমেদ বলেন, সয়াবিন তেলের অবৈধ মজুত অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে দৌলাতদিয়াড় এলাকার কুদ্দুস স্টোরে অভিযান পরিচালনা করা হয়। ওই দোকানির গুদামে তল্লাশি চালিয়ে ৫ লিটারের ৪০টি বোতল পাওয়া যায়। কিন্তু সব কটি বোতল ছিল তেলশূন্য। দোকানদার মাসুদ রানার কাছে জানতে চাইলে তিনি স্বীকার করেন, বোতল খুলে বেশি দামে বিক্রি করেছেন। ৫ লিটারের প্রতিটি বোতলের গায়ে সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ৭৬০ টাকা থাকলেও তা খুলে প্রতি লিটার ২০০ টাকায় বিক্রি করেছেন। বিক্রেতা প্রতি বোতলে অতিরিক্ত লাভ করেছেন ২৪০ টাকা। এ জন্য তাঁকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন