default-image

ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে ১৪ বছরের এক কিশোরীকে ধর্ষণের ঘটনায় গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাতে তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এর আগে মঙ্গলবার রাতেই ওই কিশোরীর বাবা ধর্ষণের পাশাপাশি মানব পাচারের অভিযোগ এনে ওই তিনজনসহ পাঁচ থেকে ছয়জনকে আসামি করে মামলা করেন। গ্রেপ্তার তিনজনকে আজ বুধবার দুপুরে জেলার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন ইলিয়াস শেখ (২৬), জহুর শেখ (২৭) ও আবদুল্লাহ (২২)। উপজেলার একটি গ্রামে অভিযান চালিয়ে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়। ওই কিশোরীর বাড়ি একই গ্রামে।

মামলার সূত্রে জানা গেছে, ওই কিশোরীকে বিভিন্ন সময় ইলিয়াস শেখ ফোনে বিরক্ত করতেন। ঢাকা নিয়ে যাওয়ার প্রস্তাবও দেন। কিন্তু কিশোরী এতে রাজি হয়নি। গত সোমবার দুপুরে কিশোরী তার খালার বাড়িতে যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে বের হয়ে একটি বাজারের কাছে পৌঁছালে ইজিবাইকচালক জহুর শেখ কৌশলে গাড়িতে ওঠান। এরপর অপর আসামি আবদুল্লাহসহ কিশোরীকে গ্রামের একটি বাগানের মধ্যে নিয়ে যান। সেখানে ইলিয়াস শেখ আগে থেকেই অপেক্ষা করছিলেন। পরে আসামিরা ওই কিশোরীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে ধর্ষণ করেন।

বিজ্ঞাপন

এ ঘটনায় ওই কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে মঙ্গলবার রাতেই গ্রেপ্তার হওয়া তিনজনসহ অজ্ঞাতপরিচয়ের আরও দুই থেকে তিনজনের বিরুদ্ধে মানব পাচার ও ধর্ষণের অভিযোগ এনে বোয়ালমারী থানায় মামলা করেন। পুলিশ মঙ্গলবার দিবাগত রাতে অভিযান চালিয়ে এজাহারভুক্ত ওই তিন আসামিকে গ্রেপ্তার করে।
বোয়ালমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুর রহমান জানান, এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের শনাক্ত করে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

মন্তব্য পড়ুন 0