default-image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রথমে করোনার টিকা নেবেন জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও সিভিল সার্জনসহ তিনজন। আজ রোববার দুপুর ১২টায় স্থানীয় সাংসদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে এই কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন।

গতকাল শনিবার রাত নয়টা পর্যন্ত জেলার নয়টি উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গতকাল রাতে স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে করোনার টিকা নিতে আগ্রহী নিবন্ধনকারীদের তালিকা পাঠানো হয়। ওই তালিকার মধ্যে জেলা সদরে ১ হাজার ১০০ জন, নাসিরনগরে ১৭২ জন, আখাউড়ায় ১২৮ জন, নবীনগরে ১৪৮ জন, বাঞ্ছারামপুরে ১৫০ জন, কসবায় ২০৪ জন, বিজয়নগরে ৯৮ জন ও আশুগঞ্জ উপজেলায় ১১০ জন নিবন্ধনকারীর তালিকা পাঠানো হয়েছে। তবে তখন পর্যন্ত সরাইল উপজেলার তালিকা পৌঁছায়নি স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. নোমানের কাছে।

প্রথমে টিকা নেওয়া প্রসঙ্গে ডিসি হায়াত-উদ-দৌলা খান প্রথম আলোকে বলেন, ‘সর্বস্তরের মানুষকে উৎসাহিত করতেই আমি প্রথমে টিকা নেব। জেলা প্রশাসক হিসেবে প্রথমে আমি টিকা নিলে মানুষ উৎসাহিত হবে। আর আমি নিজেও কোভিড-১৯ থেকে নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে চাই।’

বিজ্ঞাপন

সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা গেছে, আজ দুপুর ১২টায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে করোনার টিকার কার্যক্রম শুরু হবে। যে কয়েকজন প্রথমে টিকা নেবেন, তাঁরা হলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ডিসি হায়াত-উদ-দৌলা খান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক শওকত হোসেন ও সিভিল সার্জন মোহাম্মদ একরাম উল্লাহ।

সিভিল সার্জন মোহাম্মদ একরাম উল্লাহ প্রথম আলোকে বলেন, ‘আপাতত কয়েকজনকে আমরা নিশ্চিত করেছি। এরপর পর্যায়ক্রমে অগ্রাধিকার তালিকা অনুসারে গুরুত্ব ও জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে টিকা দেওয়া হবে। জেলার নয়টি কেন্দ্রে একযোগে টিকাদান কার্যক্রম চলবে। নয় উপজেলার ৫৪ হাজার ১০০ করোনার ডোজ ও ১ লাখ ৫৬ হাজার সিরিঞ্জ পাঠানো হয়েছে।’

জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গত ২৯ জানুয়ারি সকালে জেলায় ১ লাখ ৮ হাজার ডোজ করোনার টিকা পৌঁছায়। টিকার জন্য জেএমআই কোম্পানির ১ লাখ ৫৬ হাজার সিরিঞ্জ এসেছে। জেলায় করোনার টিকা দিতে ২৮৬ জন টিকাদানকর্মী ও ৫৭২ জন স্বেচ্ছাসেবী কাজ করবেন। জেলা থেকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ১৪ হাজার ৬৩১ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর তালিকা পাঠানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালসহ নয়টি কেন্দ্রে টিকাদান কার্যক্রম চলবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন