বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মনজুরুল আলম বলেন, ঋণখেলাপি হওয়ায় ওই তিন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। তবে ওই প্রার্থীরা জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে এ বিষয়ে আপিল করতে পারবেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এসকান্দার খালিফা বলেন, তিনি এ বিষয়ে শিগগির জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে আপিল করবেন।

প্রসঙ্গত, তৃতীয় পর্যায়ে ২৮ নভেম্বর ভাঙ্গার ১২টি ইউপিতে ভোট গ্রহণ হবে। এর মধ্যে ১২টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে মোট ৮৫ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। একই দিন ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলার তিনটি ইউনিয়ন পরিষদেও ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এ তিন ইউনিয়নে ২০ জন প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন