বিজ্ঞাপন

গৌরনদী মডেল থানার পরিদর্শক তদন্ত মো. তৌহীদুজ্জামান বলেন, হাসপাতাল থেকে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ বরিশালের শের–ই–বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

উজ্জ্বলের মা হাসি বেগমের ভাষ্য, তাঁর স্বামীর মৃত্যুর পর জমিজমা নিয়ে তাঁর দেবর মাসুম কাজীর সঙ্গে বিরোধ চলছে। বিরোধের জেরে ঝগড়ার একপর্যায়ে ২৫ মে দেবর মাসুম কাজী তাঁকে (হাসি বেগমকে) ও তাঁর ছোট মেয়ে তানহাকে বাড়ি থেকে বের করে দেন। তিনি তখন বড় মেয়ে সাকিবা আক্তারের শ্বশুরবাড়িতে চলে যান। ছেলে উজ্জ্বল কাজী তখন বরিশালে ছিল। মায়ের অভিযোগ, তাঁর দেবর তাঁর ছেলেকে খবর দিয়ে বাড়িতে আনেন। এরপর ছেলেকে মেরে আত্মহত্যা বলে চালানোর চেষ্টা করেন।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে একাধিকবার মাসুম কাজীকে কল দিলে তাঁর মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

আগৈলঝাড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মাজাহারুল ইসলাম বলেন, উজ্জ্বল কাজীর মা ও স্বজনেরা থানায় অবস্থান করে হত্যার অভিযোগ করছেন। লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন