default-image

চিকিৎসাসংক্রান্ত কাজে ১ এপ্রিল ভারতে গিয়েছিলেন দিনাজপুরের হাসমিন লুনা (৪৬) ও জাহানারা বেগম (৩৯)। চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ শেষে ২০ এপ্রিল বাড়ি ফিরে আসেন তাঁরা।

শরীরে করোনাভাইরাসের কোনো উপসর্গ না থাকলেও গত রোববার করোনা পরীক্ষা করাতে তাঁরা নমুনা দেন দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ পিসিআর ল্যাবে। বুধবার সন্ধ্যায় তাঁদের করোনা পরীক্ষার ফলাফল পজিটিভ আসে।

হাসমিন লুনা দিনাজপুর সদর উপজেলার কাউগা এলাকার বাসিন্দা। তিনি সদর উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান। জাহানারা বেগম দিনাজপুর শহরের পাটুয়াপাড়া এলাকার বাসিন্দা। বর্তমানে উভয়েই হোম কোয়ারেন্টিনে সুস্থ অবস্থায় রয়েছেন।
মুঠোফোনে হাসমিন লুনা প্রথম আলোকে বলেন, ২০ এপ্রিল বাড়িতে ফিরে আসার পর হোম কোয়ারেন্টিনে ছিলেন তিনি। বাড়ির কোনো সদস্য তাঁর কন্ট্রাক্ট ট্রেসিংয়ে আসেননি। পাঁচ দিন হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার পর নিজে থেকেই দুজনে করোনা পরীক্ষার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। আজকে করোনা পরীক্ষার ফলাফল পজিটিভ আসে। তিনি বলেন, করোনা পজিটিভ হলেও তাঁর শরীরে কোনো ধরনের উপসর্গ নেই। তিনি সুস্থ আছেন। বাড়ির দোতলায় একটি পৃথক কক্ষে পরিবারের সদস্যদের থেকে পৃথক আছেন।

বিজ্ঞাপন

এদিকে দিনাজপুরে গত ২৪ ঘণ্টায় মোট ১৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়। শনাক্তের হার ১৪ দশমিক ৬১ শতাংশ। এ নিয়ে জেলায় মোট ৩৭ হাজার ৩১৫টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে, যার মধ্যে ৫ হাজার ৩৫৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ জেলায় করোনায় মৃত্যু হয়েছে ১১০ জনের। তবে গত ৪ দিনেই মৃত্যু হয়েছে ৬ জনের। বর্তমানে করোনা রোগী আছেন ৩২২ জন। আক্রান্তদের মধ্যে হাসপাতালে ভর্তি আছেন ২৩ জন। বাকিরা হোম কোয়ারেন্টিনে থেকে মুঠোফোনে চিকিৎসাসেবা গ্রহণ করছেন।

জেলা সিভিল সার্জন আবদুল কুদ্দুস বলেন, ভারত থেকে ফিরে আসার পর করোনা পজিটিভ হওয়া এটিই প্রথম ঘটনা। তাঁদের শরীরে করোনার কোনো উপসর্গ না থাকলেও বিষয়টিকে গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের দায়িত্বশীল ব্যক্তিরা তাঁদের বাড়িতে গিয়ে প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিয়েছেন। তাঁরা সুস্থ আছেন। সিভিল সার্জন বলেন, মার্চের শেষ সপ্তাহ থেকে অদ্যাবধি করোনা সংক্রমণের হার ঊর্ধ্বমুখী। ইতিমধ্যে এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ইউনিটে ৫০ শয্যা বৃদ্ধি করা হয়েছে। চিকিৎসকদের নিয়ে জেলা-উপজেলায় কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাঁরা হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা রোগীদের মুঠোফোনে প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান করছেন। এ সময় করোনার সংক্রমণরোধে তিনি প্রত্যেককে মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ জানান।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন