বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আর র‌্যাবের হাতে আটক প্রধান আসামিসহ চারজনকে শুক্রবার বিকেলে ভালুকা মডেল থানা-পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। পরে তাঁদের এই মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে শনিবার সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। আদালত শুনানি শেষে তিনজনের তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আর মামলার প্রধান আসামি জসিম উদ্দিন পাঠান স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

রিমান্ড মঞ্জুর হওয়া ব্যক্তিরা হলেন মাসুম মোল্লাহ (৫০), রুহুল আমিন পাঠান (৪০) ও ইকবাল পাঠান (৩৮)। আর কারাগারে রয়েছেন জসিম উদ্দিন পাঠান (৫৫), রাফিকুল ইসলাম মুন্সী (৫৫), মোমিনুল ইসলাম (৩৫) ও শিরীন আক্তার(৪০)। তাঁদের সবার বাড়ি ভালুকা উপজেলার বিভিন্ন এলাকায়।

এজাহার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ধামশুর মৌজার ধোবাজানের খাল ভরাট ও স্থানীয় জসিম উদ্দিন পাঠান গংয়ের সঙ্গে কাঁঠালী গ্রামের আর্টি কম্পোজিট ডায়িং কারখানার মালিক আবদুর রাজ্জাকের জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছে। এ নিয়ে আদালতে দুই পক্ষের মামলা চলছে। বুধবার সকালে খাল ভরাট করে কারখানার বর্জ্য নিষ্কাশনের পাইপলাইন স্থাপনের কাজ করছিল কারখানা কর্তৃপক্ষ। এতে কয়েকজন বাধা দেন।

একপর্যায়ে স্থানীয় জসিম উদ্দিনের নেতৃত্বে রুহুল আমিন, ইকবালসহ আরও কয়েকজন আবদুর রাজ্জাকের ওপর হামলা করেন। ওই সময় জসিম পাঠানের দায়ের কোপে আবদুর রাজ্জাকের এক পা বিচ্ছিন্ন হয়। আরেক পা ঝুলতে থাকে। গুরুতর অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তির পর তিনি সেখানে চিকিৎসাধীন।

ভালুকা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল ইসলাম বলেন, এই মামলায় এজাহারভুক্ত ১০ জনের মধ্যে ৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মামলার প্রধান আসামি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। আদালত তিনজনের তিন করে রিমান্ড মঞ্জুর এবং বাকি তিনজনকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন