বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আজ দুপুর পৌনে ১২টায় রেজা কিবরিয়া ও নুরুল হকের নেতৃত্বে গণ অধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতারা সন্তোষে পৌঁছান। এ সময় সেখানে টাঙ্গাইলের বিভিন্ন উপজেলা থেকে আগত সংগঠনের নেতা-কর্মীরা তাঁদের সঙ্গে যোগ দেন। মিছিলসহ নেতা-কর্মীরা শ্রদ্ধা জানাতে ভাসানীর মাজারের কাছাকাছি পৌঁছালে তাঁদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। এ সময় মাথায় ইটের ঢিল লেগে রেজা কিবরিয়া আহত হন। পরে পুলিশ রেজা কিবরিয়াকে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যায়। নুরুল হকসহ কয়েকজন নেতা-কর্মীকে একটি পুলিশ ভ্যানে তুলে ভ্যানটির চারপাশ ঘিরে রাখে পুলিশ। ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা পুলিশি বাধা উপেক্ষা করে লাঠিসোঁটা নিয়ে তাঁদের ওপর হামলা করেন। চারপাশ তাঁরা ইটপাটকেল ছুড়তে থাকেন। দুপুর সাড়ে ১২টায় পুলিশ ভ্যানে করে নুরুল হকসহ ২৫ জন নেতা-কর্মী কাগমারী পুলিশ ফাঁড়িতে অবস্থান নেন। আহত রেজা কিবরিয়া প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে টাঙ্গাইল সদর থানায় যান।

default-image

সদর থানায় থাকা অবস্থায় রেজা কিবরিয়া প্রথম আলোকে বলেন, পরিকল্পিতভাবে তাঁদের ওপর হামলা করেছে ছাত্রলীগ। তাঁরা নুরুল হককে লক্ষ করে আক্রমণ করেছিলেন। এতে নারীকর্মীসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। পুলিশ রক্ষা করার চেষ্টা করছিল, কিন্তু তারা বিভিন্ন কারণে পারেনি।

অভিযোগের বিষয়ে ছাত্রলীগের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক নিবিড় পাল বলেন, শ্রদ্ধা জানাতে এসে তাঁরা ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের ওপর হামলা করেন। পরে ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা তাঁদের হামলা প্রতিহত করেন। আলোচনায় আসার জন্য নুরুল হক পরিকল্পিতভাবে এই বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেছেন।

এ বিষয়ে টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সরওয়ার হোসেন বলেন, গণ অধিকার পরিষদের নেতারা মাওলানা ভাসানীর মাজারে কাছাকাছি পৌঁছানোর পর পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। একপর্যায়ে রেজা কিবরিয়া ও নুরুল হকসহ গণ অধিকার পরিষদের নেতা-কর্মীদের পুলিশি নিরাপত্তায় ঘটনাস্থল থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন