বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, রবিউল শহরের চাউলিয়াপট্টি এলাকায় স্ত্রীকে নিয়ে ভাড়া বাড়িতে থাকেন। কিছুদিন ধরে স্ত্রীর সঙ্গে তাঁর পারিবারিক ও অর্থনৈতিক দ্বন্দ্ব শুরু হয়। রবিউলের শাশুড়ি তাঁর মেয়ের পক্ষ নেন। এর জের ধরে গতকাল সকাল সাতটায় স্ত্রী ও শাশুড়ির পরিকল্পনায় গ্রেপ্তার হওয়া দুই যুবক রবিউলকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যান। এ সময় তাঁদের বাড়িতে কেউ না থাকলেও আশপাশের মানুষ তা দেখে ফেলেন।

রকি ও স্বপন ষষ্ঠীতলা এলাকায় একটি পরিত্যক্ত টিনের বাড়িতে রবিউলকে আটকে রেখে শারীরিক নির্যাতন করেন এবং তাঁর পরিবারের কাছে তিন লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেন। মুক্তিপণের ফোন পেয়ে দুপুরে রবিউলের মা বিলকিস বেগম কোতোয়ালি থানায় রবিউলের স্ত্রী, শাশুড়িসহ ১০ জনের নামে একটি অপহরণ মামলা করেন।

মুঠোফোনের সূত্র ধরে কোতোয়ালি পুলিশ অভিযান চালিয়ে গতকাল সন্ধ্যায় ষষ্ঠীতলা এলাকা থেকে রবিউলকে উদ্ধার করে। এ সময় গ্রেপ্তার হন রকি ও স্বপন। তাঁদের কাছ থেকে দেশীয় অস্ত্র ও নেশাদ্রব্য জব্দ করে পুলিশ।

কোতোয়ালি থানার উপপরিদর্শক সাদ্দাম হোসেন বলেন, গ্রেপ্তার হওয়া দুজন একটি চক্রের লোক। বিভিন্ন ব্যক্তির কাছ থেকে তাঁরা আর্থিক সুবিধা নিয়ে এসব অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড করেন। তাঁদের কাছ থেকে মোট ১৬টি দেশীয় অস্ত্র এবং ২ বোতল ফেনসিডিল ও ৬টি ইয়াবা বড়ি জব্দ করা হয়েছে।

সাদ্দাম আরও বলেন, পুলিশ বাদী হয়ে আসামিদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইন ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করেছে। দায়ের হওয়া মামলায় ভুক্তভোগী ব্যক্তির স্ত্রী, শাশুড়িসহ মোট আটজনকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। আজ মঙ্গলবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে গ্রেপ্তার দুজনকে জেলহাজাতে পাঠানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন