বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কিশোরগঞ্জের হাওরবেষ্টিত নিকলী, মিঠামইন, বাজিতপুর ও অষ্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকায় এখন আগের চেয়ে ভুট্টার আবাদ বেশি হচ্ছে। চাহিদা থাকায় ভুট্টার দামও ভালো পাচ্ছেন কৃষকেরা। গত বছর যে ভুট্টার মণ ছিল ৭০০ থেকে ৭৫০ টাকা, সেই ভুট্টা এ বছর কৃষকেরা ১ হাজার ২০০ থেকে ১ হাজার ২৫০ টাকায় বিক্রি করছেন। সে জন্য যেসব জমিতে গত বছরও ধান আবাদ হতো, সেসব জমিতে মাঠের পর মাঠ দেখা যাচ্ছে এখন ভুট্টার খেত।

গত শনিবার সরেজমিনে নিকলী সদর বাজারে দেখা যায়, স্থানীয় স্কুল ও কলেজ মাঠে নারী-পুরুষসহ পরিবারের ছোট–বড় সবাই ভুট্টা মাড়াই ও ভাঙানোর কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন। নিকলী জি সি পাইলট সরকারি উচ্চবিদ্যালয় মাঠে ভুট্টা শুকানো ও মেশিন দিয়ে ভাঙার কাজ করছেন নিকলী বড় পুকুরপাড়ের কৃষক আলিম উদ্দিন। তাঁকে এসব কাজে সহযোগিতা করছেন তাঁর স্ত্রী মরিয়ম আক্তার ও পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ুয়া মেয়ে নাবিলা আক্তার।

আলিম উদ্দিন জানান, ভুট্টা চাষে তিনি লাভবান। ১ হাজার ২০০ টাকা মণে তিনি এবার প্রায় ৪ লাখ টাকার ভুট্টা বিক্রি করতে পারবেন। এতে তাঁর খরচ হয়েছিল প্রায় দেড় লাখ টাকা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, নিকলীতে ২ হাজার ৩৮০ হেক্টর, মিঠামইনে ২ হাজার ১২০ হেক্টর, বাজিতপুরে ১ হাজার ৫৮০ হেক্টর, অষ্টগ্রামে ৫২০ হেক্টরসহ জেলার বিভিন্ন জায়গায় এবার মোট ৮ হাজার ২৮৫ হেক্টর জমিতে ভুট্টার আবাদ করা হয়েছে।

কিশোরগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. ছাইফুল আলম বলেন, আগে এ জেলায় ভুট্টা চাষ কম হলেও এবার জেলায় ৮ হাজার ২৮৫ হেক্টর জমিতে ভুট্টার আবাদ হয়েছে। যে হাওরাঞ্চলে একসময় ভুট্টা খুব কম দেখা যেত, সেখানে এখন চারদিকে ভুট্টার দেখা মেলে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন