এজাহারভুক্ত গ্রেপ্তার আসামিরা হলেন—ভেড়ামারা উপজেলার চণ্ডীপুর গ্রামের মিন্টু মালিথা (২৮), চাঁদগ্রামের রনি মালিথা (২৮), জনি (২৮), ড্যানি (২৫) ও জারমান প্রামাণিক (৪০)। ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে মিন্টু মালিথা ও রনি মালিথার দেখানো জায়গা থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত দুটি অস্ত্র উদ্ধার করা হয়।

র‍্যাবের পাঠানো বিশেষ সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গ্রেপ্তার মিন্টু মালিথা ও রনি মালিথা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আওয়ামী লীগ নেতা সিদ্দিকুর রহমানকে হত্যার ঘটনায় সম্পৃক্ত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। তাঁদের ভেড়ামারা থানায় সোপর্দ করা হবে।

গত শুক্রবার সকাল সাড়ে আটটার দিকে চাঁদগ্রাম ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমানকে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ সময় তাঁর আপন তিন ভাই ও এক ভাতিজা গুলিবিদ্ধ হন। শনিবার রাতে সিদ্দিকুরের চাচাতো ভাই এনামুল হক বাদী হয়ে ২০ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও ১০-১২ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন।

হত্যা মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও কুষ্টিয়া জেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক আবদুল আলীমকে। ২ নম্বর আসামি তাঁর ছোট ভাই চাঁদগ্রাম ইউনিয়ন জাসদের সভাপতি ও চাঁদগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল হাফিজ তপন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন