পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন, শবে কদরের নামাজ পড়তে মসজিদে যাওয়ার পথে রাত পৌনে নয়টার দিকে কালিকাপ্রসাদ বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ভৈরব-ময়মনসিংহ আঞ্চলিক মহাসড়ক পার হচ্ছিলেন রহমত উল্লাহ। এ সময় প্রথমে কিশোরগঞ্জ থেকে আসা ভৈরবের দিকে আসতে থাকা একটি অটোরিকশা তাঁকে ধাক্কা দেয়। এতে তিনি সড়কের ওপর ছিটকে পড়েন। এর পরপরই ভৈরব থেকে কিশোরগঞ্জগামী অপর একটি অটোরিকশা রহমত উল্লাহকে ধাক্কা দেয়।

গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে ভৈরবের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নেওয়া হয় তাঁকে। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাঁকে নেওয়া হয় বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। অবস্থার অবনতি হলে ওই হাসপাতাল থেকে রহমত উল্লাহকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিতে বলা হয়। ঢাকায় নেওয়ার পথে গতকাল দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে তাঁর মৃত্যু হয়।

রহমত উল্লাহ স্ত্রী, এক ছেলে ও দুই মেয়ে রেখে গেছেন জানিয়ে তাঁর নিকটাত্মীয় কবির আহমেদ বলেন, দুর্ঘটনার পর একজন চালক অটোরিকশা নিয়ে এবং অপর চালক অটোরিকশা রেখে পালিয়ে যান।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. জুলহাস হোসেন বলেন, আজ জুমার নামাজের পর কালিকাপ্রসাদ ইউনিয়নের মিয়াবাড়ি মাঠে বীর মুক্তিযোদ্ধা রহমত উল্লাহর জানাজা হবে। সেখানে তাঁকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা দেওয়া হবে।

জানতে চাইলে ভৈরব হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাম্মেল হোসেন বলেন, ‘ঘটনাটি জানা নেই। এখন খোঁজখবর নিচ্ছি।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন