default-image

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোট দিয়েছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। ভোট দিয়ে তিনি বলেছেন, ‘যেভাবে ভোট হচ্ছে, তাতে ভোট ছিনিয়ে নেওয়ার সুযোগ বা শঙ্কা নেই।’

আজ বুধবার সকাল সোয়া আটটায় নগরীর আন্দরকিল্লা ওয়ার্ডের মুসলিম এডুকেশন সোসাইটি (এমইএস) উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দেন নওফেল।

ভোট দেওয়ার পর সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে চট্টগ্রাম-৯ আসনের সাংসদ নওফেল বলেন, ‘চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট হচ্ছে। যেভাবে ভোট হচ্ছে, তাতে ভোট ছিনিয়ে নেওয়ার সুযোগ বা শঙ্কা নেই। ভোটারদের কেন্দ্রে এসে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে আহ্বান জানাই।’

বিজ্ঞাপন

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র মহিউদ্দিন চৌধুরীর ছেলে মুহিবুল হাসান চৌধুরী। তিনি আজ আরও বলেন, ‘সুষ্ঠু ভোটের ব্যবস্থা করায় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই।’

উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষা ও নাগরিক সেবা নিশ্চিত করতে ভোটাররা নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরীকে জয়ী করবেন বলে আশা প্রকাশ করেন নওফেল। তিনি বলেন, ‘যিনি মেয়র হবেন, তাঁর কাছ থেকে এসব নাগরিক সেবা আমরা আশা করি। নৌকার প্রার্থী জয়ী হবেন বলে প্রত্যাশা করি।’

মুসলিম এডুকেশন সোসাইটি (এমইএস) উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার সুরজিৎ বড়ুয়া জানান, কেন্দ্রটির মোট ভোটার ১ হাজার ৬২০ জন। প্রথম আধঘণ্টায় ১২টি ভোট পড়েছে। ভোট গ্রহণ সুষ্ঠুভাবে চলছে।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনে আজ ভোট হচ্ছে। সকাল ৮টায় ভোট শুরু হয়। বিকেল ৪টা পর্যন্ত টানা ভোট চলবে।

মোট ৭৩৫টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ৪২৯টিকেই ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে পুলিশ। শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ নিশ্চিতে নিরাপত্তার দায়িত্বে আছেন পুলিশের ৯ হাজার সদস্য।

চট্টগ্রাম সিটির আজকের ভোটে মেয়র পদে সাতজন প্রার্থী থাকলেও মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে আওয়ামী লীগের রেজাউল করিম চৌধুরী ও বিএনপির শাহাদাত হোসেনের মধ্যে।

দুজনই প্রথমবারের মতো মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ফলে চট্টগ্রামের মানুষ আজকের ভোটে একজন নতুন মেয়র পেতে যাচ্ছেন।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন